ভার্চুয়াল এসিসেন্ট কি?

ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট হচ্ছে একটি অনলাইন ভিত্তিক সেবা যেখানে আপনি ঘরে বসে কম্পিউটার এর মাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানি কে সাহায্য সহযোগিতা করতে পারবেন করাকেই ভার্চুয়াল এসিস্ট্যান্ট বলে। আপনি আপনার নিজের ঘরে বসে পুরো বিশ্বে এ সার্ভিসটি দিতে পারবেন এটি হচ্ছে ভার্চুয়াল এসিসটেন্ট এর কাজ।

মানুষ যেমন অফলাইনে সেবা দেয় একজন আরেকজনকেএক্স ভার্চুয়াল এসিস্ট্যান্টে হয়ে কাজ করতে চাইলে ঠিক তেমনি ভাবে আপনাকে অনলাইনে থাকতে হবে এবং কম্পিউটারের মাধ্যমে বিভিন্ন লোকের বিভিন্ন কোম্পানির সাহায্য করতে হবে।

কি কি জানা দরকারঃ

ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এই জব টি করতে হলে আপনাকে ভাল পরিমানে কম্পিউটার ব্যবহার করা জানতে হবে এবং ইংলিশে কথা বলা জানতে হবে। ইংলিশে লিখতে জানতে হবে ভালোভাবে কম্পিউটার চালানোর এক্সপার্ট হতে হবে এবং মানুষের সাহায্য করার মত যে সমস্ত বিষয়বস্তু গুলো আছে সেগুলো আপনাকে ভালোভাবে জানতে হবে তাহলে আপনি ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর কাজ গুলো করতে পারবেন।

ভার্চুয়াল এসিসটেন্ট এর কাজ করতে গেলে আপনি প্রায় প্রতি কাজে 10 থেকে 100 ডলার পর্যন্ত পেয়ে যাবেন। এবং ছোটখাটো কাজ করতে পারেন আবার বড় ধরনের কোনো কাজও করতে পারেন যেমন কোনো একজনের ফেসবুক পেজের কাজ করে দেওয়া।

এবং কোন একটা ওয়েবসাইটের হেলপ্লাইন এ জয়েন করে তাদের ওয়েবসাইটের ভিজিটর দের কে সাহায্য করা হেল্প করা এবং কোন দিকে ও পরামর্শ দেওয়া কোন বিজনেস অথবা কোন কম্পানিকে অনলাইনে বসে পরামর্শ এই সমস্ত কাজ গুলি করে থাকে ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এরা।

ভার্চুয়াল এসিসটেন্ট হয়ে আপনি কোন কোম্পানিকে গ্রাফিক্সের কাজ করে দিতে পারেন গ্রাফিক্স ডিজাইন করে দিতে পারেন তাদের বিভিন্ন প্রোডাক্ট সেল করতে হেল্প করতে পারেন সাহায্য করতে পারেন কোন সাজেসন্স দিতে পারেন এবং তার কাজে কোন অসুবিধা হলে আপনি সেগুলো সমাধান করে দিতে পারেন

ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এই কাজগুলো কোথায় পাবেন বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস আছে যেখানে প্রচুর পরিমাণে ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর প্রয়োজন হয়ে থাকে আপনি চাইলে ঐ সমস্ত ওয়েবসাইটগুলো ভিজিট করতে পারেন এবং তাদের মাধ্যমে ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট জব এ আপনি এপ্লাই করতে পারেন এবং সেখান থেকে আপনি ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট জব পেয়ে যেতে পারেন।

আপনি যদি এই বিষয়ের নতুন হয়ে থাকেন যদি কিছু না বুঝে থাকেন তাহলে ইউটিউবে সার্চ করতে পারেন প্রচুর পরিমাণে ভিডিও রয়েছে সেগুলো দেখে আপনি এই ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর কাজ গুলি শিখে নিতে পারেন।

এই কাজগুলি শিখে নেওয়ার মাধ্যমে আপনি অনলাইন থেকে ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট হয়ে বিভিন্ন কোম্পানিকে সাহায্য সাপোর্ট করে প্রচুর পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

তার জন্য অবশ্যই আপনাকে ইংলিশে ভালো দক্ষ হতে হবে কারণ পুরো বিশ্বে হেল্প এবং সাপোর্ট সবকিছুই করা হয়ে থাকে ইংলিশ ভাষার মধ্য হয়।
তাই আপনাকে ইংলিশ ভাষা ভালোভাবে বলতে হবে এবং ভালোভাবে লিখতে হবে এই বিষয়গুলো যদি আপনি জেনে থাকেন তাহলে আপনি খুব সহজে ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর কাজ গুলো করতে পারবেন এবং প্রচুর পরিমাণে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন এই ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর কাজ করে।

এই কাজ গুলো পাওয়ার জন্য আপনি বিভিন্ন ওয়েবসাইট ঘুরতে পারেন ভিজিট করতে পারেন সেখান থেকে আপনি প্রচুর পরিমাণে বায়ার পেয়ে যাবেন তাদের সাথে কন্টাক্ট করে আপনি ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট এর কাজ গুলি করতে পারেন

ভার্চুয়াল এসিসেন্ট কি আর ভার্চুয়াল এসিস্টেণ্ট হয়ে আয় করা যায়

যে প্রফেশনালগন রিমোট লোকশন হতে কোন ব্যবসা বা ব্যক্তিকে নানা রকমের সাপোর্ট সার্ভিস দিয়ে থাকেন তাদের ভার্চুয়াল এসিস্টেণ্ট বা ভিএ বলা হয়।

দ্রুত গতির ইন্টারনেটের প্রসারের ফলে ভার্চুয়াল এসিস্টেন্ট হিসাবে কাজ করা কিংবা ভার্চুয়াল এসিস্টেন্ট হায়ার করার বিষয়টি যেমন সহজ হয়েছে ঠিক তেমনি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

এছাড়া যে সমস্থ ব্যবসায়ীদের কর্মী দরকার কিন্তু তারা তাদের এলাকায় তেমন কাউকে পাচ্ছে না কিংবা অফিসেই নিয়োগ করতে পারছে না তাদের কাছে ভারচুয়াল এসিস্টেন্ট হিসাবে কাউকে নিয়োগ করা খুবই প্রয়োজনীয়।

ভার্চুয়াল এসিস্টেন্টরা কি ধরনের কাজ করে

যদিও আগে সাপোর্ট আর এডমিনিস্ট্রিটিভ কাজের সাহায্যের জন্যই ভার্চুয়াল এসিস্ট্যান্টদের হায়ার করা হতো এখন নানারকমের স্কিল কাজের জন্যও ভার্চুয়াল এসিস্টেন্ট হায়ার করে।

কোন স্কিল স্পেসিফিক না হলে একজন ভিএকে নানা ধরনের কাজ করতে হয়। যেমন একটা ওয়েব সাইটের নানা ধরনের কাজ করতে হয়- পেইজ যোগ করা, সম্পাদনা করা, এসইও করা, ডিজাইন করা ইত্যাদি।

আবার কাউকে হয়তো কেবল সোশ্যাল মিডিয়া প্রোফাইল গুলো ম্যানেজ করার জন্য নিয়োগ করা হয়েছে আবার কাউকে সেলস সাপোর্ট দেয়ার জন্য নিয়োগ করা হয়েছে। পুরো বিষয়টি নির্ভর করে যিনি হায়ার করবেন তার প্রয়োজন আর যিনি কাজ করবেন তিনি কি কি করতে পারেন তার উপর।

তবে অনেক ক্ষেত্রে প্রফেশানলাদের স্কিল অনুযায়ী ভিএ স্পেশালাইজেশনের ক্যাটাগরি করা হয়। যেমনঃ

  • ওয়ার্ডপ্রেস ভিএ
  • গ্রাফিস ভিএ
  • সোশ্যাল মিডিয়া ভিএ
  • অফিস ও এডমিন ভিএ
  • ইত্যাদি

ফ্রিল্যান্সার ও ভার্চুয়ালএসিস্ট্যান্টের মধ্যে পার্থক্য কি?

ফ্রিল্যান্সার একটা ব্রড টার্ম। একজন ফ্রিল্যান্সার যে সার্ভিসটি দেন তিনি সেটি স্বাধীন ভাবে দিয়ে থাকেন। তিনি নির্দিস্ট কোণ ক্লায়েন্টের জন্য কাজ করেন না। কারো সাথে প্রজেক্ট ভিত্তিক, কারো সাথে ঘন্টা ভিত্তিক চুক্তিতে কাজ করেন। একজন ফ্রিল্যান্সার রিমোটলি আবার অন সাইটেও উপস্থিত থেকেও কাজ করে থাকেন।

একজন ভিএ আর ফ্রিল্যান্সারের সাথে খুব বেশি পার্থক্য নেই। ভিএ মুলত ফ্রিল্যান্সিংয়ের একটা অন্তগত বিষয়। একজন ভিএ রিমোটলি কাজ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *